দেশে বেড়েছে ১০ হাজার নতুন কোটিপতি: বাংলাদেশ ব্যাংক

নিউজ দর্পণ, ঢাকা: করোনা মহামারিতে থমকে গেছে গোটা বিশ্ব। স্থবির হয়ে পড়েছে দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা। পুরো মানব জাতি এক অদৃশ্য ভাইরাসের কাছে বিপর্যস্ত। উৎপাদন এবং চাহিদা না থাকায় অর্থনীতিতে কমেছে সাধারণ মানুষের আয়। তবে এই বিপর্যয়ের মধ্যেও দেশে দ্রুতহারে বেড়েছে ধনী ব্যক্তিদের সম্পদ। মহামারির এক বছরে বেড়েছে কোটিপতির সংখ্যা।

মহামারি করোনার বছরে দেশে নতুন করে কোটিপতি হয়েছেন ১০ হাজার ৫১ জন।২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে ১ কোটি ১ টাকা থেকে ৫০ কোটি বা তার বেশি টাকা আমানত আছে এমন ব্যাংক হিসাবের সংখ্যা বেড়েছে ১০ হাজার ৫১টি। বাংলাদেশ ব্যাংকের সবশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমন তথ্য।

গত বছর শেষে মোট কোটিপতি ব্যাংক হিসাবের সংখ্যা ৯৩ হাজার ৭৯০টি। ২০১৯ সালে কোটিপতি হিসাব ছিল ৮৩ হাজার ৮৩৯টি। ২০২০ সালের কোটিপতি হিসাবধারীদের মোট আমানতের পরিমাণ ৫ লাখ ৯৫ হাজার ২৮৬ কোটি টাকা। ২০১৯ সালের আমানতের পরিমাণ ছিল ৫ লাখ ২৬ হাজার ৯৯৭ কোটি টাকা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকিং খাতে মোট আমানতকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ কোটি ৫৮ লাখ ১২ হাজার ৯৬৬টি। এসব হিসাবে আমানতের পরিমাণ ১৩ লাখ ৭৯ হাজার ১৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট আমানতের প্রায় ৪৪ শতাংশ টাকাই তাদের দখলে।

প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ১ কোটি ১ টাকা থেকে ৫ কোটি টাকার আমানতকারীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৩ হাজার ৮৭৫টি। বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ৭ হাজার ৯৫৬টি।

৫ কোটি ১ টাকা থেকে ১০ কোটির মধ্যে হিসাব রয়েছে ১০ হাজার ৪৭২টি। এর আগে ২০১৯ সালে যা ছিল ৯ হাজার ৪২৬টি।

১০ কোটি ১ টাকা থেকে ১৫ কোটির মধ্যে হিসাব ৩ হাজার ৫০৭টি। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে এ হিসাবধারী ছিল ৩ হাজার ১৮৪ জন।

১৫ কোটি ১ টাকা থেকে ২০ কোটির হিসাবধারী ১ হাজার ৬৩২ জন। আগে যা ছিল ১ হাজার ৪৭২ জন।

২০ কোটি ১ টাকা থেকে ২৫ কোটির মধ্যে হিসাব রয়েছে ১ হাজার ১৩৩ জনের। ২০১৯ সালে যা ছিল ৯৯৭ জন।

২৫ কোটি ১ টাকা থেকে ৩০ কোটির মধ্যে ৭২৫ জন। এর আগের বছর এ হিসাবধারী ছিল ৫৮৮ জন।

৩০ কোটি ১ টাকা থেকে ৩৫ কোটি টাকার মধ্যে হিসাবধারী ৩৮৪ জন। এর আগের বছর যা ছিল ২৪৬ জন।

৩৫ কোটি ১ টাকা থেকে ৪০ কোটির মধ্যে হিসাবধারীর সংখ্যা কমেছে। ডিসেম্বর শেষে এমন হিসাবের সংখ্যা ২৯৪টি। আগের বছর এমন হিসাবধারী ছিলেন ৩৮৪ জন।

গত এক বছরে ৪০ কোটি ১ টাকা থেকে ৫০ কোটি টাকার অ্যাকাউন্ট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৭৮টি, যা ২০১৯ সাল পর্যন্ত ছিল ৩৫৮টি।

এই সময়ে ৫০ কোটি টাকার বেশি আমানত রাখা ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ১ হাজার ৩৯০ জনে দাঁড়িয়েছে। ২০১৯ সাল শেষে যা ছিল ১ হাজার ২৮৩ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *