বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড  রাষ্ট্র ও সমাজকেও বিপদের মুখে ঠেলে দেয়: মেনন

নিউজ দর্পণ, ঢাকা: বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড কেবল ব্যক্তির মৌলিক অধিকারকেই লঙ্ঘন করে না, রাষ্ট্র ও সমাজকেও বিপদের মুখে ঠেলে দেয় বলে মন্তব্য করেছেন ক্ষমতাসীন ১৪ দলের শরীক ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন।

ওয়ার্কার্স পার্টির ‘সন্ত্রাসবিরোধী দিবস’ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর কমিটির আলোচনা সভায় অনলাইন ভিডিও কলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সন্ত্রাস-মাদক নির্মূলের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে দেশবাসী কেবল উদ্বিগ্নই নয়, হতাশও বটে রাশেদ খান মেনন বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ‘অপরাশেন ক্লিনহার্ট’-নামে বিচারবহির্ভূত হত্যাকে দায়মুক্তি দিয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়ের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড সেই ধারাবাহিকতাই চলছে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড কেবল ব্যক্তির মৌলিক অধিকারকেই লঙ্ঘন করে না, রাষ্ট্র ও সমাজকেও বিপদের মুখে ঠেলে দেয়। মেজর সিনহার হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে টেকনাফ অঞ্চলে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের যেসব তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে তা থেকে সাধারণ মানুষের মনে একই প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে যেমন আইনি ব্যবস্থা প্রয়োজন তার চেয়ে বড় প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা ও প্রতিরোধ। রাজনৈতিক দলগুলোকে দেশের মানুষের মধ্যে সেই সচেতনতা ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

মেনন আরও বলেন, বিএনপির দুঃশাসনের বিরুদ্ধে ১৪ দল যে লড়াই করেছিল তার অন্যতম দাবি ছিল বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধ করা। কিন্তু সন্ত্রাস ও মাদক নির্মূলের নামে ওই একই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বহাল থাকায় দেশবাসী কেবল উদ্বিগ্নই নয়, হতাশও বটে।

ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি আবুল হোসাইনের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আবদুল খালেক, ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোর রায়, ঢাকা মহানগর সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ফজলু ও সাদাকাত হোসেন খান বাবুল প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *