পল্লবীতে গৃহবধূ, ঢাকা কারাগারে হাজতির মৃত্যু

নিউজ দর্পণ,ঢাকা: রাজধানীর মিরপুর পল্লবীতে তেলাপোকা মারার ওষুধ খেয়ে রুবিনা আক্তার (২৬) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) সকাল ৭টার দিকে অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মৃতের স্বামী রুবেল হোসেন জানান, তারা মিরপুর-১১ নম্বর সেকশনের ব্লক-সি, ২৫ নম্বর লাইনের একটি বাসায় ভাড়া থাকেন। তিনি সিকিউরিটি গার্ডের কাজ করেন। তাদের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) রাতে পারিবারিক বিয়ষয়াদি নিয়ে স্বামী-স্ত্রী মধ্যে একটু রাগারাগি হয়।

এরপর খাবার খেয়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে তিনি ঘুম থেকে উঠে দেখেন একই বিছানায় অচেতন অবস্থায় শুয়ে আছেন তার স্ত্রী রুবিনা এবং তার মুখ দিয়ে লালা পড়ছে।

এতে তার সন্দেহ হলে দ্রুত তাকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরও জানান, বাসায় তেলাপোকা মারার ওষুধ ছিল আগের। তিনি ঘুমিয়ে যাবার পর রুবিনা ওই ওষুধ খেয়েছে বলে তার ধারণা।

এদিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে (কেরানীগঞ্জ) বন্দি প্রিন্স (২২) নামে এক হাজতির মৃত্যু হয়েছে।

কারারক্ষী মো. ফয়সাল আহমেদ জানান, প্রিন্সের বাবার নাম আশরাফুল আলম। বাড়ি রংপুরের পীরগঞ্জের রতনপুর গ্রামে। আশুলিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন মামলার আসামি ছিলেন তিনি। রাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদশর্ক) মো. বাচ্চু মিয়া জানান, মরদেহ দু’টি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *