মুন্সীগঞ্জে দাদী-নাতিসহ বিভিন্ন স্থানে ৫

নিউজ দর্পণ ডেস্ক: মুন্সীগঞ্জে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেস ওয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় দাদী-নাতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় ট্রাক, মাইক্রোবাস ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার ত্রিমুখী সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন।
ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেস ওয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় দাদী-নাতি নিহত হওয়ায় সড়ক অবরোধ করেছে এলাকাবাসী। শুক্রবার ৬ নভেম্বর সকাল সাড়ে ৮ টায় ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার হাঁসাড়া কালী কিশোর স্কুল এন্ড কলেজ গেট নামক স্থানে মাওয়া হতে ঢাকাগামী প্রাইভেটকার দুুই পথচারীকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে (৬০)বছরেরএক বৃদ্ধ মহিলা মিনা মল্লিক( ৮) বছরের নাতি অচিন মল্লিক নিহত হয়েছে। নিহতরা সম্পর্কিত দাদী-নাতি ছিলো। দুর্ঘটনার পর ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে অবরোধ করে এলাকাবাসী। এতে ২ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে। নিহতরা সিরাজদিখান উপজেলার চিত্রকোট ইউনিয়নের কালশির গ্রামের নাসিন্দা। বৃদ্ধা শ্রীনগরে মেয়ে বাড়ি বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে এই দুর্ঘনার শিকার হন। এ বিষয়ে হাইওয়ে থানার এসআই মজিবর জানান, অজ্ঞাতনামা দ্রুতগামী গাড়ি চাপা দিয়ে পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে দাদী-নাতি মারা যায়। লাশ উদ্ধার করে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পাঠানো হয়েছে। স্বজনরা এলে তাদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হবে।
এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় ট্রাক, মাইক্রোবাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার ত্রিমুখী সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে উপজেলার সৈয়দাবাদ এলাকার কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে একজন পুরুষ, একজন নারী ও এক শিশু রয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও চারজন। তবে তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের নাম জানাতে পারেনি পুলিশ।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়াগামী একটি মালবোঝাই ট্রাকের সঙ্গে সৈয়দাবাদ এলাকায় বিপরীত দিক থেকে আসা অপর একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষ হয়। এ সময় ট্রাক ও অটোরিকশার সঙ্গে আরেকটি মাইক্রোবাসের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় অটোরিকশা ও মাইক্রোবাসের আরোহীরা গুরুতর আহত হন। তাদেরকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক এবিএম মুসা জানান, হাসপাতালে আনার পথেই তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত বাকিদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। সবাই মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন। তাদেরকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *