গ্যাটকো মামলায় খালেদা জিয়ার চার্জ শুনানি ১৮ নভেম্বর

নিউজ দর্পণ, ঢাকা: বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা গ্যাটকো মামলায় চার্জ গঠন শুনানির তারিখ আরও এক দফা পিছিয়ে আগামী ১৮ নভেম্বর নতুন দিন ধার্য করেছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার ঢাকার ৩ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক নজরুল ইসলাম বেগম জিয়ার অসুস্থতায় শুনানি মুলতবি করে এ দিন ধার্য করেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবী জিয়াউদ্দিন জিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘আজ গ্যাটকো মামলায় বেগম খালেদা জিয়াসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য ছিল। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া অসুস্থ থাকায় তাঁকে আদালতে হাজির করতে পারেনি কারা কর্তৃপ। ফলে বিচারক শুনানি মুলতবি রেখে আগামী ১৩ অক্টোবর নতুন দিন ধার্য করেছেন।

২০১৬ সালের ৫ এপ্রিল এ মামলায় হাজির হয়ে জামিন পান বেগম খালেদা জিয়া। মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০০৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) উপপরিচালক গোলাম শাহরিয়ার বাদী হয়ে ১৩ জনের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় গ্যাটকো দুর্নীতি মামলা দায়ের করেন। মামলার পরদিনই খালেদা জিয়া ও কোকোকে গ্রেফতার করা হয়।

২০০৮ সালের ১৩ মে বেগম খালেদা জিয়াসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর মুখ্য হাকিম (সিএমএম) আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপপরিচালক মো. জহিরুল হুদা।

আলোচিত এ মামলার ২৪ আসামির মধ্যে এরইমধ্যে ৭ জন মারা গেছেন। তারা হলেন- খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো, সাবেক মন্ত্রী এম সাইফুর রহমান, বিএনপির সাবেক মহাসচিব আব্দুল মান্নান ভূঁইয়া, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী এম কে আনোয়ার, সাবেক মন্ত্রী এম শামছুল ইসলাম, মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসি কার্যকর হওয়া জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী, চট্টগ্রাম বন্দরের প্রধান অর্থ ও হিসাবরণ কর্মকর্তা আহমেদ আবুল কাশেম। বর্তমানে এ মামলায় আসামির সংখ্যা ১৭ জন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গ্যাটকোকে ঢাকার কমলাপুর আইসিডি ও চট্টগ্রাম বন্দরের কন্টেইনার হ্যান্ডলিংয়ের কাজ পাইয়ে দিয়ে রাষ্ট্রের ১৪ কোটি ৫৬ লাখ ৩৭ হাজার ৬১৬ টাকার তি করেছেন।

এছাড়াও গ্যাটকোও ঠিকাদারি কাজ পাইয়ে দেয়ার বিনিময়ে অবৈধভাবে আরাফাত রহমান কোকো ও ইসমাইল হোসেন সায়মন ২ কোটি ১৯ লাখ ৯৯ হাজার ৭৩৬ টাকার আর্থিক সুবিধা নেন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *