ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে আর্থিক সহায়তা ও পুর্নবাসনের দাবি গয়েশ্বরের

নিউজ দর্পণ, ঢাকা: আগুনে পুড়ে যাওয়া পল্লবীর বাউনিয়াবাধ বস্তিসহ প্রতিটি ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন জনসম্মুখে প্রকাশ করে দায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে আর্থিক সহায়তা ও পুর্নবাসনের জোর দাবি জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।
আজ শনিবার বিকালে পল্লবীর বাউনিয়াবাধ সংলগ্ন অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ দাবি জানান।
এ সময়ে গয়েশ^ও চন্দ্র রায় বলেন, রাজধানীর বিভিন্ন বস্তিতে আগুন লাগার পর ঘটনার রহস্য উদঘাটনে গঠিত তদন্ত কমিটির কোনো প্রতিবেদন আজ পর্যন্ত আলোরমুখ দেখা যায়নি। ফলে অপরাধীরা থেকে যাচ্ছে ধরা চোয়ার বাহিরে। প্রতিটি ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন জনসম্মুখে প্রকাশ করে দায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে আর্থিক সহায়তা ও পুর্নবাসনের জোর দাবি জানান তিনি।
বিএনপির ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক ও বাংলাদেশ ফুলবল দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হককে পাশে রেখে এ ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। গত তিন বছরে ঢাকায় বিভিন্ন বস্তিতে ৯৫৩টি অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এ পর্যন্ত একটিরও অভিযোগপত্র দিতে পারেনি উল্লেখ করে গয়েশ্বর বলেন, এসব অগ্নিকান্ড কি পরিকল্পিত? নাকি ব্যক্তিস্বার্থে? অথবা জমি যদি সরকারি হয় এবং তা সরকারের আওতায় নেয়ার সম্ভাবনা যখন দেখা দেয় তখনই এ ধরণের অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এ ধরণের ঘটনা ঘটার পর তদন্ত কমিটি গঠনের কথা শোনা যায়, তদন্ত কমিটি গঠিত হয় কিন্তু তদন্ত প্রতিবেদন আলোর মুখ দেখা যায় না।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে গয়েশ্বর বলেন, দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা একেবারে ভঙ্গুর করোনা পরিস্থিতি তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখা দিয়েছে।
অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের হাতে আর্থিক সহায়তা ও শীতবস্ত্র বিতরণ করার সময় আরো ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড কমিশনার মেহেরূননেছা, বিএনপি নেতা আশরাফ আলী গাজী, হাজি তৈয়ব, আমজাত মোল্লা, নোজু, বাবুল, সেলিম, গাজী সিরাজ, রানা, মোতালেব,হারুন, লালন, আলিম, সোয়েব, লাইলী বেগম, পলি। পল্লবী ও রূপনগর থানার শ্রমিক দলের সভাপতি জুয়েল, আবদুর রব,শ্রমিক নেতা শাহা,সোহেল, পল্লবী ও রূপনগর থানা বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবকদল, ছাত্রদল, শ্রমিকদল, তাতীদল , মহিলাদল, সহ অঙ্গসংগঠন নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *