কেমন মঞ্চ পেলে ম্যাক্সওয়েল আগুন ঝরাবে প্রশ্ন শেবাগের

নিউজ দর্পণ, ডেস্ক: গ্লেন ম্যাক্সওয়েল- নামটি শুনলেই যেকোনো ক্রিকেটপ্রেমীর মনে ভেসে ওঠে মারকুটে এক ব্যাটসম্যানের নাম। যিনি অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দল কিংবা যেকোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে ঝড়ো ব্যাটিংয়ে মাতিয়ে রাখেন গ্যালারি। যার প্রমাণ মেলে তার টি-টোয়েন্টি পরিসংখ্যানে।

এখনও পর্যন্ত কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে ২৭৭ ম্যাচ খেলে ২৭ গড় ও ১৫৩ স্ট্রাইকরেটে ৬০৬৪ রান করেছেন ৩১ বছর বয়সী ম্যাক্সওয়েল। তিন সেঞ্চুরির সঙ্গে হাঁকিয়েছেন ৩৩টি ফিফটি। কিন্তু সে তুলনায় ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ক্রিকেটে বেশ নিষ্প্রভই বলা চলে ম্যাক্সওয়েলকে।

আইপিএল ক্যারিয়ারে এখনও পর্যন্ত ৭৫ ম্যাচে মাত্র ১৯ গড়ে ১৪৪৫ রান করেছেন তিনি। স্ট্রাইকরেট ১৫৬ হলেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি বেশি, ফিফটি মাত্র ছয়টি। এখনও পর্যন্ত আইপিএলে ৮ আসর খেললেও মাত্র দুই আসরে ছয়বার পঞ্চাশের দেখা পেয়েছেন তিনি।

চলতি আসরসহ ছয়টি আসরে একবারের জন্যও ফিফটি করতে পারেননি ম্যাক্সওয়েল। সবশেষ ফিফটি ২০১৬ সালের আসরে। তার ব্যর্থতার সকল মাত্রা যেনো ছাড়িয়ে গেছে এবারের আইপিএলে। এখনও পর্যন্ত ছয় ম্যাচে ৫৮ বল মোকাবিলা করে মাত্র ৪৮ রান করতে সক্ষম হয়েছেন তিনি।

মারকুটে ব্যাটসম্যান হিসেবে পরিচিত হলেও এবারের আসরে এখনও পর্যন্ত হাঁকাতে পারেননি কোনো ছক্কা। ম্যাক্সওয়েলের এমন ছন্নছাড়া পারফরম্যান্সের মাশুল গুনতে হচ্ছে কিংস এলেভেন পাঞ্জাবকেও। দলের প্রয়োজনের সময় কিছুই করতে পারছেন না তিনি। পাঞ্জাবও হারছে একের পর এক ম্যাচ।

ছয় ম্যাচের মধ্যে পাঁচটিতে হেরে পাঞ্জাবের অবস্থান এখন টেবিলের তলানিতে। এমতাবস্থায় ম্যাক্সওয়েলের ওপর বেজায় চটেছেন ভারতীয় ক্রিকেট দল ও কিংস এলেভেন পাঞ্জাবের সাবেক ওপেনার ভিরেন্দর শেবাগ। এমন ব্যর্থতাপূর্ণ পারফরম্যান্সের পরেও আইপিএল নিলামে ম্যাক্সওয়েলকে নিয়ে কাড়াকাড়ির কোনো ব্যাখ্যা খুঁজে পান না শেবাগ।

ক্রিকবাজের সঙ্গে আলাপে ম্যাক্সওয়েলের বিষয়ে শেবাগ বলেন, ‘আমি জানি না কেমন মঞ্চ পেলে ম্যাক্সওয়েল আগুন ঝরাবে। হায়দরাবাদের বিপক্ষে সে অনেক আগে নেমেছে, অনেক ওভার বাকি ছিলো কিন্তু পারেনি। এর আগের ম্যাচগুলোতে স্লগ ওভারে নেমেও ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমি আসলে তার মাইন্ডসেটই বুঝতে পারি না। প্রতিবছর ঠিক একই ঘটনা দেখা যায়। নিলামে দাম থাকে চড়া কিন্তু খেলার মাঠে পারফরম্যান্স একই। তবু ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো তার পেছনে দৌড়ায়। এর কারণটাই আমি বুঝি না। পরের নিলামে তার দাম ১০ কোটির বদলে ১-২ কোটি হয়ে যাওয়া উচিৎ। কারণ এটা মাথায় রাখা উচিৎ, তার সবশেষ ফিফটি ২০১৬ সালে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *