ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন ও পুলিশি হেফাজতে মৃত্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবে বিএনপি

নিউজ দর্পণ, ঢাকা: করোনা মোকাবিলায় সরকারের অবস্থান, ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন ও পুলিশের হেফাজতে মৃত্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবে বলে জানিয়েছে বিএনপি। আজ রোববার দুপুর সোয়া ১২ টার দিকে গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানান দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপির মহাসচিব জানান, শনিবার স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এদিন বিকাল ৫টায় অনুষ্ঠিত এ বৈঠকের সিদ্ধান্ত সমূহ:

১। সভায় গত ৪ আগষ্ট ২০২০ দলের ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী জনাব আবদুল মান্নান এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়। এদেশের রাজনীতিতে এবং উন্নয়নে ক্ষেত্রে তাঁর অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করা হয়। জনাব আব্দুল মান্নানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয় এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমদেনা জ্ঞাপন করা হয়।
২। সভায় সাবেক ছাত্রনেতা, স্বেচ্ছা সেবক দলের সভাপতি জনাব শফিউল বারী বাবুর অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়। তার এই অসময়ে চলে যাওয়ায় দলের অপূরনীয় ক্ষতি হলো। জনাব শফিউল বারী বাবুর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য স্বৈরচার বিরোধী সংগ্রামে এর বর্তমান ফ্যসীবাদী একনায়কতন্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করছে দল।
জনাব শফিউল বারীর মৃত্যুতে দল একজন নিবেদিত প্রাণ তরুণ নেতাকে হারালো। তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয় এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।
৩। সভায় সাম্প্রতিক কালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দলের নেতা-কর্মী যারা ইন্তেকাল করেছেন তাদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয় এবং পরিবার পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।
৪। সভায় সাম্প্রতিক কালে করোনা ভাইরাসে যে সকল চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিক, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য এবং দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ইন্তেকাল করেছেন সকলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয় এবং পরিবার পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।
৫। সভায় কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকার যে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন এবং জনগণ যে ভাবে সংক্রমিত হচ্ছে সরকারের অবহেলা ও উদাসীনতায় বেড়ে চলেছে, তাতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এই বিষয়ে অতি স্বল্প সময়ের মধ্যে একটি বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
৬। সভায় সম্প্রতি কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা নিহত হওয়া এবং গত ৫ বছরে বিচার বহিভূত হত্যাকান্ড এবং পুলিশ হেফাজতে হত্যার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। মানবাধিকার লঙ্ঘন করে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বিশেষ করে পুলিশের গুলিতে যে ভাবে হত্যার ঘটনা বেড়েই চলেছে তাতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় এবং এ বিষয়েও বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
৭। সভায় ডিজিটাল সিকিউরিটি এ্যাক্ট কে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার, হয়রানী বেড়েই চলেছে যা বাক স্বাধীনতা ও সংবাদ পত্রের স্বাধীনতাহরণ এবং ভিন্ন মত দমনের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। অবৈধ্য সরকার ক্ষমতার অগণতান্ত্রিক ভাবে টিকে থাকা এবং একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার হীন ষড়যন্ত্র করছে। এ বিষয়ে একটি বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
৮। সভায় সাংগঠনিক বিষয়ে এবং বর্তমান রাজনৈতিক বিষয়ে আলোচনা হয়।
৯। সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সভা মুলতবী ঘোষণা করেন।

দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমেদ, জমির উদ্দিন সরকার, রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, আব্দুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু অংশগ্রহণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *