উপনির্বাচনে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা করছে: বিএনপি

নিউজ দর্পণ,ঢাকা: ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা বিএনপির প্রার্থী, সমর্থক ও ভোটারদের ওপর বেপরোয়াভাবে বীরদর্পে হামলা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি।

সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স এ অভিযোগ করেন।

এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ঢাকা-১৮ এবং সিরাজগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা বেপরোয়াভাবে বীরদর্পে হামলা চালাচ্ছে বিএনপির প্রার্থী, সমর্থক ও ভোটারদের ওপর। এছাড়া পুরনো মামলা কিংবা নতুন গায়েবী মামলার হুমকি দিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশী নির্যাতন ও গ্রেফতার তো ‘মরার ওপর খাঁড়ার ঘা’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। জাতীয় সংসদ উপ-নির্বাচনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নাকের ডগায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের ওপর চলছে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলা ও নির্যাতন।

ঢাকা-১৮ এবং সিরাজগঞ্জ-১ জাতীয় সংসদ উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ একের পর এক নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে যাচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, সরকারী দুর্নীতি, লুটপাট ও সন্ত্রাস এবং নানান দুস্কর্মকে আড়াল করতেই সরকার তাদের আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশনকে দিয়ে আসন্ন জাতীয় সংসদ উপ-নির্বাচনে নিজেদের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ভোট ডাকাতির খেলায় উঠেপড়ে লেগেছে। কারণ সরকারের নিকট একটি বিষয় সন্দেহাতীতভাবে পরিস্কার হয়ে গেছে যে, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তাদের পরাজয় নিশ্চিত।

নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহবান জানিয়ে প্রিন্স বলেন, আসন্ন ঢাকা-১৮ এবং সিরাজগঞ্জ-১ জাতীয় সংসদ উপ-নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও কলুষমুক্ত করতে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করুন। নইলে ভোটাধিকার কেড়ে নেয়ার পরিণতি কতটা বিপজ্জনক হতে পারে তা জনগণ বুঝিয়ে দিবে।

তিনি বলেন, গতকাল পুরাতন ঢাকার মালিটোলায় অবস্থিত ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ‘শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়’ এর স্কুল গেট থেকে ভোটচুরির নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঘোষিত ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে স্কুলের নাম পরিবর্তন করা হচ্ছে।

“মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ জিয়ার বীরত্বপূর্ণ অবদান এবং আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ২০০৬ সালে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের তৎকালীন মেয়র সাদেক হোসেন খোকা শহীদ জিয়াউর রহমানের নামে এই স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন। বিএনপি’র পক্ষ থেকে এই প্রতিহিংসাপরায়ণ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এর নামফলক পুন:স্থাপনের জোর আহবান জানাচ্ছি। এসব ঘটনার মধ্য দিয়ে সরকারের প্রতিহিংসার রাজনীতির মুখোশ উন্মোচিত হচ্ছে।”

এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, গতকাল রাজধানীর কলাবাগানে মিডনাইট নির্বাচনের এক সংসদ সদস্যের ছেলে ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা সশস্ত্র বাহিনীর এক কর্মকর্তা ও তার সহধর্মীনির ওপর হামলা, তাদেরকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও মারাত্মকভাবে রক্তাক্ত করেছে। আমরা এই ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি করছি। এই সরকারের লোকদের ক্ষমতার দাপটে দেশের কোন শ্রেণী-পেশার মানুষের জীবনের নিরাপত্তা ও সম্মান নেই। কক্সবাজারের ওসি প্রদীপ কর্তৃক সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহার হত্যা, সিলেটে পুলিশী হেফাজতে রায়হান হত্যাসহ এধরণের ঘটনা এখন নিত্যদিনের ঘটনায় পরিণত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *