আমার কল লিস্ট চেক করলে জানা যাবে অপহরণকারী কারা: সরোয়ার

নিউজ দর্পণ, চট্টগ্রাম:  অপহৃত হওয়ার কয়েক দিন আগে থেকেই কয়েকটি নিউজের কারণে মুঠোফোনে হুমকি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার। অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের বের করতে তিনি নিজের মোবাইল ফোনের কল লিস্ট যাচাইয়ের আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, ‘অপহরণের আগে থেকে বেশ কয়েকটি অজ্ঞাত মোবাইল নম্বর থেকে আমাকে ফোন করে হুমকি দেয়া হয়। এর মধ্যে একটি নম্বর থেকে বলা হয়, ‘নিউজ করে ভালো করেননি’। আমি চাইব আমার মোবাইল ফোনের কল লিস্ট চেক করা হোক। তাহলেই জানা যাবে তারা কার ছিল।’
আজ বুধবার দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি এ আহ্বান জানান। এ সময় তিনি কোন নিউজের কারণে হুমকি পেয়েছেন সেটি উল্লেখ করেননি।

সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার বলেন, ‘অপহরণের দিন আনুমানিক রাত ১২টার দিকে নগরের জিইসি মোড় এলাকা হয়ে বাড়ি যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। আলমাস সিনেমা হলের একটু আগে একটি লোকাল মোটরসাইকেলকে হাত দেখাই। এ সময় চালক কোথায় যাবেন জানতে চাইলে আমি বলি নতুন ব্রিজ (শাহ আমানত সেতু) যাব। কিন্তু মোটরসাইকেলটি কিছু দূর যেতেই চালক গতি কমানোর সঙ্গে সঙ্গে অন্য আরেকজন ব্যক্তি পেছনে উঠে বসেন। বিষয়টির প্রতিবাদ করলে ওই ব্যক্তি চুপ থাকার আদেশ দিয়ে আমার মুখমণ্ডলে কিছু একটা ঘষে দেন। সঙ্গে সঙ্গে আমার চোখ বেঁধে ফেলা হয়।’
তিনি বলেন, ‘এর অনেকক্ষণ পরে আমি নিজেকে একটি মেঝেতে আবিষ্কার করি। এ সময় অপহরণকারীরা আমাকে কিছু একটা দিয়ে পেঁচিয়ে বেশ মারধর করে। হাতের গিরা ও পায়ের দিকে ব্যাপক মারধরের পর জানতে চায়, ‘আর নিউজ করবি কি না বল?’ ওই সময় আমি তাদের বলি, ভাই আমার পরিবারের আমি ছাড়া কেউ নেই আমাকে ছেড়ে দেন।
সাংবাদিক সরোয়ার জানান, অজ্ঞাত স্থানে বন্দি থাকা অবস্থায় তিনি বেশ কয়েকবার অপহরণকারীদের কথোপকথন শুনতে পেয়েছেন। যেখানে অপহরণকারীরা কেউ একজনকে ‘স্যার’ সম্বোধন করে কথা বলেছিলেন। এ সময় তিনি শুনতে পান, অপহরণকারীরা মোবাইলের অপর প্রান্তের লোককে বলছিলেন, ‘স্যার ফেলে দেব?’ তখন অপরপ্রান্ত থেকে জবাব আসে, ‘ও হলো ত্যানাফাডা (ছোটখাটো) সাংবাদিক, ওরে ফেলে লাভ নেই। ওরে দিয়ে অন্যদের শায়েস্তা করব।’
তিনি আরও জানান, তিনি এখনও মানসিকভাবে সুস্থ নন। শারীরিক দুর্বলতাও আছে। এ ঘটনায় তিনি মামলা করবেন কি না- তা নিয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি। কারণ তিনি আর্থিকভাবে ততটা ভালো অবস্থানে নেই। তিনি চান আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখবে।
চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার মানসিকভাবে এখনও বিধ্বস্ত। আমরা তাকে অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে মামলায় উৎসাহিত করছি। এ ঘটনায় মামলা পরিচালনা ও গোলাম সরোয়ারের দেখভালের পুরো দায়িত্ব চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন নেবে। শুধু গোলাম সরোয়ার নন, কোনো কর্মরত সাংবাদিক যদি ইউনিয়নের সদস্যও না হন, তাহলেও তার পাশে সাংবাদিক ইউনিয়ন দাঁড়াবে।’
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ম. শামসুল ইসলাম, সিনিয়র সহ-সভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ, অনিন্দ্য টিটো, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম ইফতেখারুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ইফতেখার ফয়সাল, সাপ্তাহিক আজকের সূর্যোদয়ের চট্টগ্রাম ব্যুরোপ্রধান জোবায়ের সিদ্দিকীসহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা, বেসরকারি টেলিভিশন ও অনলাইন পোর্টালে কর্মরত সাংবাদিকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *