আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সামনেই এজেন্টদের বের করে দিয়েছে আ.লীগের সন্ত্রাসীরা: সালাউদ্দিন

নিউজ দর্পণ, ঢাকা: আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সামনেই ধানের শীষের এজেন্টদের বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী সালাউদ্দিন আহমেদ।
ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ এর ৪ টি কেন্দ্রের ২টিতে বিএনপির এজেন্ট আছে! আজ সকাল ৯ টায় ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। উল্লেখ্য ভোট শুরুর আগে সকাল ৮ টা থেকেই বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্ট ও ভোটারদের বের করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেলেও সকাল ১০ টায় বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ তার প্রাধান নির্বাচনী কার্যালয়ের পাশের কেন্দ্র যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ পরিদর্শনে গেলে সেখানে বিএনপির এজেন্টদের পাওয়া যায়।

৯৫ ভাগ কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ঢাকা-৫ আসনের উপ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহম্মেদ।

শনিবার সকাল পৌনে দশটায় যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল ও কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ অভিযোগ করেন।

সালাহউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠুভাবে আজ পর্যন্ত কোনো নির্বাচন করতে পারেনি। তাই আজকের নির্বাচনও সুষ্ঠু হবে না বলেই আমি মনে করি। বেশিরভাগ কেন্দ্র থেকে আমাদের এজেন্টদেরকে বের করে দিয়েছে। এজন্য ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ কেন্দ্রে আমাদের এজেন্ট নেই।

তিনি বলেন, এটি একটি ভোটারবিহীন নির্বাচন। তারা যেভাবে ত্রাস সৃষ্টি করেছেন এতে করে জনগণ তাদের ভোট দেবে না। তবুও আমি শেষ পর্যন্ত দেখবো এবং শেষ পর্যন্ত থাকবো।

বিএনপি প্রার্থী জানান, ৫০ নং ওয়ার্ডের ৯ নম্বর কেন্দ্র যাত্রাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিএনপির এজেন্টরা গেলে তাদের স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে জোর করে বের করে দেয়া হয়।

সালাহউদ্দিন আরো বলেন, এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে বিএনপির পোলিং এজেন্টদের বের করে দিয়ে একটি ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করে রাখা হয়েছে যাতে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে আসতে ভয় পায়।

নির্বাচন বর্জন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বর্জন নয় শেষ পযন্ত নির্বাচনে থেকে এখান থেকেই সরকার পতনের আন্দোলনের শুরু করা হবে।

উল্লেখ্য, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লা গত ৬ মে মারা যাওয়ায় ঢাকা-৫ আসনটি শূন্য হয়।
ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ছয় প্রার্থী। তাঁরা হলেন- আওয়ামী লীগের মো. কাজী মনিরুল ইসলাম, বিএনপির সালাহ্ উদ্দিন আহম্মেদ, জাতীয় পার্টির মীর আব্দুর সবুর, গণফ্রন্টের এইচ এম ইব্রাহিম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আনছার রহমান শিকদার ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আরিফুর রহমান।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৪টি থানা নিয়ে এই আসনটি গঠিত, তাহলো- মতিঝিল (আংশিক), যাত্রাবাড়ি, ডেমরা ও কদমতলী (আংশিক)।

এই আসনে ১৪টি ওয়ার্ডে মোট ১৮৭টি কেন্দ্রের ৮৬৪টি কক্ষে ১হাজার ৯৫টি বুথে ভোটগ্রহণ চলছে। এখানে মোট ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ৭১ হাজার ১২৯ জন। যাঁদের মধ্যে পুরুষ দুই লাখ ৪১ হাজার ৪৬৪ জন ও নারী দুই লাখ ২৯ হাজার ৬৬৫ জন।

এর আগে বিএনপি প্রার্থীর মিডিয়া সেল থেকে জানানো হয়, সকাল ৮.১০ মিনিটে ৫০ নং ওয়ার্ড এর ৯ নম্বর কেন্দ্র যাত্রাবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বিএনপির এজেন্টরা গেলে তাদের স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়া হয়। এছাড়াও ৬৮ নং ওয়ার্ডের হাজী আদর্শ মোয়াজ্জেম আলী হাই স্কুল, সানারপাড় রুস্তম আলী হাই স্কুল ও ফুলকলি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৬৬ নং ওয়ার্ডের ভ্যামুইল আইডিয়াল স্কুল, সারুলিয়া ডগাইর দারুস সুন্নত ফাজিল ফাদ্রাসা,৭০ নং ওয়ার্ডে ১৮৫ নং কেন্দ্র ( আমুলিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়), দেল্লা, ৬৬ নং ওয়ার্ডের ১৪৮ ও ১৪৯ কেন্দ্র থেকে বিএনপির সকল পোলিং এজেন্টদের পুলিশের সামনেই আওয়ামী লীগের উগ্রকর্মীরা বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি প্রার্থী। এদিকে
৪৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অনু তার ওয়ার্ড এর সকল কেন্দ্রের দখল নিয়েছেন বলেও অভিযোগ বিএনপি প্রার্থী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *